সেই মসজিদের দানবাক্সে এবারও কোটি টাকা!

কিশোরগঞ্জ সংবাদদাতা:  দানবাক্স থেকে বিশাল অঙ্কের টাকা সংগ্রহের জন্য বাংলাদেশের কিশোরগঞ্জ জেলার পাগলা মসজিদ বেশ আলোচিত। ক’মাস আগেই সেই মসজিদের দানবাক্স থেকে কোটি টাকা উপরে পাওয়া গিয়েছিলো। এবার পাওয়া গেল ৮৪ লাখ ৯২ হাজার টাকা।

নির্ধারিত সময়ের একমাস আগেই শনিবার জেলা প্রশাসনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণের উপস্থিতিতে পাগলা মসজিদের দানসিন্দুক খোলা হয়। প্রথমে টাকাগুলো বস্তায় ভরা হয়। এরপর শুরু হয় গণনার কাজ। লাখ লাখ টাকার এই গণনা শেষ হতে হতে বিকেল হয়ে যায়। এছাড়াও দান বাক্স থেকে সোনা, রূপা, অলঙ্কার ও বেশকিছু বৈদেশিক মুদ্রাও পাওয়া যায়।

টাকা গণনার কাজে উপস্থিত ছিলেন কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আলমগীর হোসাইন, সিনিয়র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের সাঈদসহ প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটির সদস্যবৃন্দ।

গণনা শেষে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু তাহের সাঈদ বলেন, ‘প্রতিবার সাধারণত চার মাস পরপর মসজিদের দানবাক্সগুলো খোলা হয়। কিন্তু এবার একমাস আগেই দানবাক্সগুলো খোলা হলো। টাকাগুলো গুনে নগদ ৮৪ লাখ ৯২ হাজার টাকা পাওয়া গেছে।’ এই মসজিদে গত ৬ই জানুয়ারি দানবাক্স থেকে সর্বোচ্চ এক কোটি ২৭ লাখ ৩৬ হাজার ৪৭১ টাকা পাওয়া গিয়েছিলো।

তিনি জানান, প্রাপ্ত টাকাগুলো রূপালী ব্যাংকে জমা রাখা হয়েছে। আর স্বর্নালঙ্কারগুলো আগের স্বর্নালঙ্কারের সঙ্গে সিন্দুকে রাখা হয়েছে। এছাড়া মসজিদে দান করা গবাদীপশু ছাগল, হাস-মুরগী প্রতি সপ্তাহেই নিলামের বিক্রি করা হয়।

কিশোরগঞ্জের নরসুন্দা নদীর তীরে নয়নাভিরাম এই পাগলা মসজিদের অবস্থান। মসজিদটি অনেক অনেক বছরের পুরনো। এখানে জুমার দিন হাজার হাজার মুসল্লির সমাগম হয়। মসজিদে মহিলাদের জন্য নামাজ আদায়ের আলাদা ব্যবস্থা রয়েছে। সাধারণ মানুষ বিশ্বাস করেন এই মসজিদে দান করলে মনোবাসনা পূর্ণ হয়।

Share Button