মৌলভীবাজারে প্রথম বারের মতো হলুদ তরমুজের চাষ

বিক্রমজিত বর্ধন, মৌলভীবাজার: মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে প্রথম বারের মতো চাষ হয়েছে হলুদ তরমুজ।

আমাদের ফেইসবুক পেজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।

যা খেতে অতন্ত সুস্বাধু ও সুমিষ্ট। রং ও স্বাদের জন্য চাহিদা বেশি থাকায় এটি চাষাবাদে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হওয়ারও একটি মাধ্যম বলে জানায় কৃষি বিভাগ।

শ্রীমঙ্গলে প্রথম বারের মতো এটি নিয়ে আসেন আলাউদ্দিন মোহাম্মদ তৌফিক নামের এক কৃষক ।
একজন সুশিক্ষিত যুবক। সরকারী চাকুরীর পেছনে না ছুঠে তিনি জীবন জীবিকা ও তার হৃদয়ে ভালোবাসা ঢেলে দিয়েছেন মা ও মাটির প্রতি।

পৃথিবীতে এমন দেশ নেই যাদের মা আমাদের বাংলাদেশের মায়ের মতো। আমাদের মা আমাদের ( বাংলাদেশের মাটি দেশের জনগনকে) যে ভাবেভালোবাসেন এমনটা বিরল। কিন্তু আমরা আমাদের মাকে সেভাবে ভালোবাসিনা।

বিশ্ব ব্যাপী যেকোন দূর্যোগত্তোর আমাদের ঘুরে দাড়ানোর প্রধান অবলম্বন আমাদের প্রিয় মাতৃভুমির উর্বর মাটি।

এ প্রয়াসে তিনি মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলের ইউছুবপুরে ১০ বিঘা জমি লিজ নিয়ে শুরু করেন থাইল্যান্ডের হলুদ তরমুজ কর্নিয়ার চাষ। চাষ করেন, সাম্মামসহ আরো কয়েক জাতের তরমুজ। শ্রীমঙ্গলের মাটিতে হলুদ তরমুজ কেমন হয় মুলত এটা ছিলো তার গবেষনা বা দেখার বিষয়।

তিনি জানান, শ্রীমঙ্গলে হবে কিনা একটা দুশ্চিন্তা নিয়ে তিনি প্রায় ৮/১০ লক্ষ টাকা খরচ করে সেখানে তা চাষ করেন।

শ্রীমঙ্গলের মাটিতে এর ভালো উৎপাদন তার মনে দুশ্চিন্তা কাটিয়ে আনন্দ ও স্বস্থি এনে দিয়েছে। শ্রীমঙ্গলের ক্ষেতে এক একটি তরমুজ ৫ থেকে ৬ কেজি করে ওজন হয়েছে। তিনি জানান,  শ্রীমঙ্গলের মাটি হলুদ তরমুজের জন্য উপযোগী। এখন এটি অনান্য চাষীদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে হবে।

এ ব্যাপারে শ্রীমঙ্গল উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নিলুফার ইয়াসমিন মুনালিসা সুইটি জানান, হলুদ তরমুজ শ্রীমঙ্গলের জন্য সম্পুন্ন নতুন। আলাউদ্দিন মোহাম্মদ তৌফিক শ্রীমঙ্গলে এটি চাষের আগ্রহ প্রকাশ করলে তারা নিয়মিত তাকে পরামশ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন। তিনি জানান, শ্রীমঙ্গলের মাটি এই তরমুজ চাষের উপযোগী। গত বছর এই তরমুজটি বাংলাদেশে আসে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় এর পরীক্ষামুলক চাষ হয়েছে। তবে শ্রীমঙ্গলে চাষে এর পরিপুর্নতা মিলেছে।
এ ব্যাপারে জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কাজী লুৎফুল বারী জানান, এটা মৌলভীাবজার জেলার মাটির জন্য উপযোগী। এর প্রডাকশন আমাদের দেশী তরমুজের মতো। তবে এটির সালো বেশি, এর সুন্দর একটি ফ্লেবারও রয়েছে। তিনি তৌফিকের তুরমুজের ক্ষেত ঘুরে দেখেছেন। উৎপাদন ভালো হয়েছে। তবে জমি নিচু থাকায় বৃষ্টির পানি কিছু প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। তবে আগামীতে এটা মৌলভীবাজারে অন্য যারা দেশীয় জাতের তরমুজ চাষকরেন তাদেরকে এটি চাষের জন্য কৃষি বিভাগ থেকে বীজ ও উৎসাহ দেয়া হবে।

Share Button