মৌলভীবাজারের ১০ জনসহ ৬২৫ হুন্ডি ব্যবসায়ী সনাক্ত -গ্রেফতারের নির্দেশ

নিউজ ডেক্স: মৌলভীবাজারের ১০জন সহ ৬২৫ হুন্ডি ব্যবসায়ীর মাধ্যমে দেশের বাইরে পাচার ৫০ হাজার কোটি টাকা হয়েছে।
টাস্কফোর্স গঠন করে গ্রেফতারের নির্দেশ।

সারাদেশে অবৈধ পন্থায় এই ব্যবসায়ীরা কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছেন। কাগজপত্রের মাধ্যমে লেনদেন না হওয়ায় এ প্রক্রিয়ায় টাকা পাচার করা হলে তা শনাক্ত করতে পারে না আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। বিষয়টি তদন্ত করে সম্প্রতি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ ৬২৫ জন হুন্ডি ব্যবসায়ীর একটি নামের তালিকা প্রণয়ন করেছে। এই ৬২৫ হুন্ডি ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে টাস্কফোর্স গঠন করে তাদেরকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের তৈরি করা এই তালিকা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, পুলিশের আইজি ও র্যাব মহাপরিচালকের কাছে পাঠানো হয়েছে। বলা হয়েছে, সীমান্তবর্তী এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকার কিছু বানিজ্যিক ব্যাংক, কুরিয়ার সার্ভিস, সিএন্ডএফ এজেন্ট, ইমিগ্রেশনের এক শ্রেণীর অসত্ কর্মকর্তা ও কর্মচারীর প্রত্যক্ষ সহযোগিতায় হন্ডি ব্যবসায়ীরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন। হন্ডির মাধ্যমে লেনদেনের ফলে পাচারকৃত অর্থের একটি অংশের বিনিময়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করছে আগ্নেয়াস্ত্র, বিস্ফোরক ও মাদক। এসব অবৈধ অস্ত্র ও বিস্ফোরক বিভিন্ন হাত হয়ে শীর্ষ স্থানীয় সন্ত্রাসীদের হাতে পৌঁছে যাচ্ছে।
জঙ্গিদের হাতে এসব অস্ত্র চলে গিয়ে দেশের নিরাপত্তাও ঝুঁকির মুখে পড়ছে। এছাড়া বাংলাদেশে অবস্থানকারী হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের আত্মীয়-স্বজন ভারতে বসবাস করায়, তাদের অর্জিত সম্পদ ও আয় ভারতে পাঠিয়ে সঞ্চয় করতে নিরাপদ বোধ করেন। এ ধরনের অর্থের প্রায় অধিকাংশই হন্ডির মাধ্যমে পাচার হয়ে থাকে বলে সরকারের ওই প্রতিবেদন বলা হয়েছে। হন্ডি ব্যবসায়ীদের তালিকা দেওয়া হলো :
মৌলভীবাজার
মৌলভীবাজার শহরের মিশন রোডস্থ ইয়াওর রহমান, কমলগঞ্জের বিজয়, কুলাউড়ার রোমান মিয়া, শ্রীমঙ্গলের বকুল পাল, মৌলভীবাজার সদর উপজেলার উত্তর মুলায়েম গ্রামের বাচ্চু মিয়া,  ডাঃ আব্দুল আহাদ, শাহ মোস্তফা টাওয়ারের মালিক মুহাইমিন, কুলাউড়ার শামীম, সুমন আহমদ ও শমসেরগঞ্জের  মোহাম্মদ আব্দুর রহিম।
সিলেট
জকিগঞ্জের মুক্তাদির আহমেদ শামীম, আতিকুর রহমান আতিক, সেলিম খান, হারুনুর রশিদ, জয়নাল আবেদীন, হারিছ আলী, আমীর আলী ও হারিছ আলী।

হবিগঞ্জ
বানিয়াচং থানার মোস্তাক আহমেদ, ইমরান আহমেদ, নবীগঞ্জের বাবুল মিয়া, চুনারুঘাটের জাবেদ খান, মাধবপুরের জসিম উদ্দিন, সুমন মিয়া, ডালিম মিয়া, ফরিদ মিয়া ও শাহজাহান মিয়া।

চট্টগ্রাম
হাটহাজারীর সুমন (দুবাই প্রবাসী), আলতাফ হোসেন(দুবাই প্রবাসী), জিয়াউল হক (দুবাই প্রবাসী), সাতকানিয়ার কুতুব উদ্দিন রনি, রাঙ্গুনিয়ার খালেদ মাহমুদ, রাউজানের প্রিয়তোষ চৌধুরী, রাউজান পৌরসভার স্বপন দাস গুপ্ত, জমির উদ্দিন পারভেজ, ফকিরহাট বাজারের সুধীর পালিত, সাধন ধর, হাটহাজারীর গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, আবুল ফয়েজ, চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের হাজী স্টোরের আব্দুল কাদের, রাউজানের আবু জাফর, হাটহাজারীর নূর উদ্দিন ইসলাম, আতিকুল ইসলাম খান হাবিব, বাকলিয়ার ইছা, বায়েজিদ এলাকার চামড়া মান্নান, রিয়াজ উদ্দিন বাজারের মোজাম্মেল হোসেন, সুগন্ধা এলাকার নুর কামাল ওরফে বর্মাইয়া নুর কামাল, খুলশীর যোবাইর ওরফে রেজওয়ান, বহদ্দারহাটের ইসমাইল, চান্দগাঁওয়ের সাইফুল, পাঁচলাইশের আইয়ুব প্রকাশ ওরফে বাট্টা আইয়ুব, লাভ লেইন এলাকার রোহিঙ্গা আনোয়ার, ফটিকছড়ির আফসার মিয়া, হিলভিউ ষোলশহর এলকার ওসমান প্রকাশ ওরফে কালো ওসমান, তামাকুন্ডি লেনের আইয়ুব, খাতুনগঞ্জের ইউনুস, মদিনা মার্কেটের আবু আহমেদ প্রকাশ, ফয়েজ প্রকাশ টাকলা ফয়েজ ও বাহার লেনের আইয়ুব।
কক্সবাজার
টেননাফের জালিয়া পাড়ার গফুর, মোজাম্মেল হক, ইসমাইল, আজিজুল হক, আইয়ুব ওরফে বাইটা আইয়ুব, আব্দুস সাত্তার, ডেইলপাড়ার আব্দুল করিম, টেকনাফ পৌরসভার ইসমাইল, আব্দুল জলিল, ইসহাক, লোকমান, জালিয়াপাড়ার মোস্তাক হোসেন মুছু, টেকনাফের ফারুক, আব্দুল কাদের, আব্দুর রশিদ ওরফে বেক্কু, মোস্তাক আহমেদ, হাছন আলী, ইদ্রিস মিয়া, মীর কামরুজ্জামান, জিয়াউর রহমান, ইউনুস, হোসেন আহমেদ , ইয়াছিন, আলী, আব্দুল মতিন ডালিম, এহেছান, একরাম, আনোয়ার, জয়নাল আবেদীন, কলিম উল্লাহ, ওবাইদুল হক ফাহিম, ফোরকান উল্লাহ, কালু, পিন্টু, জালাল উদ্দিন, আজিম, রাসেল, নাসির উদ্দিন, দেলোয়ার হোসেন, তৈয়ব আজিজ, জাফর আলম ওরফে টিটি জাফর, আলী রোহিঙ্গা, নুরুল আমিন, খুরশিদ, আবু তাহের, মনিরুজ্জামান লেডু, মৌলভী আমান, উসমান, জহির আহমেদ, নুরুস সামাদ লালু, সবুজ ধর, আবু বক্কর আল মাসুদ, নির্মল ধর, বিমল ধর, মীর কামরুজ্জামান, সালাম, আব্দুর রহিম, সেলিম, শাহেদ রহমান নিপু, শফিক ও মাহবুব।
কুষ্টিয়া
মজমপুরের স্বপন কুমার সাহা, ইসলাম অটোজের শাহীন, জনতা অটোজের আরিফুর রহমান, বেনারসি কুঠিরের শামছুল আলম, নাসিম উদ্দিন আজিম, কোর্টপাড়ার হাবিব, গঙ্গা প্রসাদ কেজরিওয়ালা লেনের অশোক কুমার কেজরিওয়ালা, কানাই কর্মকার, কাজী মোজাহিদুল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম, নান্টু, ষষ্ঠি কুমার ও রাজ কুমার।
কুমিল্লা
চৌদ্দগ্রামের পিয়ার আহমেদ, জাফর আহমেদ বাবু, বিবির বাজারের ইউনুস মিয়া, আলমগীর হোসেন, শাহাপুরের জাহাঙ্গীর আলম, চৌদ্দগ্রামের আনোয়ার হোসেন, শাহ আলম, মামুন, কুমিল্লার নিশ্চিন্তপুরের কফিল উদ্দিন, কোতয়ালির জাকির হোসেন, সোহেল, বিবেক চন্দ্র সাহা, চৌদ্দগ্রামের জসিম, বিবির বাজারের আনোয়ার হোসেন তালুকদার, পোল্ট্রি ব্যবসায়ী শাহজাহান তালুকদার ও বিবির বাজারের আলমগীর।
ব্রাক্ষণবাড়িয়া
বিজয়নগরের শাহীন ভূইয়া, সদরের মুন্নি ফ্যাশনের জামাল উদ্দিন, শারমিন শাড়ী বিতানের সফিকুল ইসলাম, রফিকুল ইসলাম, রতন ফার্মেসীর রতন দাস, আশুগঞ্জের মিন্টু মিয়া, মুসা মিয়া, আখাউড়ার স্বর্ণ ব্যবসায়ী গৌরাঙ্গ চন্দ্র পাল, পেয়ারুল মিয়া, বিজয়নগরের জামাল উদ্দিন ভুইয়া, কাজিপাড়ার মাসুম বিল্লাহ, আসাদুজ্জামান রাফি, আখাউড়ার রিপন সরকার, শানু মিয়া ও হাফেজ মোল্লা।
চাঁদপুর
ডিশ ব্যবসায়ী দিপু সাহা, মানিক, মতলবের খসরু ঢালী, সুভাষ চন্দ্র রায় ওরফে টেডি সুভাষ ও হাজীগঞ্জের আবু ইউসুফ।
নোয়াখালী
সেনবাগের সেলিম উদ্দিন, বেগমগঞ্জের মন্টু সাহা, সোনাইমুড়ীর বেলায়েত হোসেন, কোম্পানীগঞ্জের নাজেম উদ্দিন, বসুরহাটের আব্দুল্লাহ আল মামুন ও চৌমুহানি পৌরসভার সেলিম উদ্দিন।
লক্ষ্মীপুর
থানা রোডের শংকর মজুমদার, চরুরহিতার জসিম উদ্দিন, এমরান হোসেন টিপু, রাসেল চৌধুরী, কাজী নজরুল, মাসুম হোসেন, লিটন, কৃষ্ণ দেবনাথ, সোহাগ, চন্দ্রগঞ্জের হারুনুর রশিদ, আব্দুল্লাহ, বলরাম দেবনাথ, দাউদ হোসেন মীরন, সোহেল, রামহগঞ্জের মুনতাহা টেলিকম, সোহেল কনফেকশনারী, নাঈম অহনা, আব্দুল ওয়াদুদ, আবু সাঈদ চিকনা সাঈদ, রায়পুরের শিবু লাল সাহা, ওসমান, মাছুম, রামগতির আলমগীর, সেলিম, কমলনগরের হিরন মিয়া, হাজী মনিরুল ইসলাম, রামগতির অপরুপ দাস ও বাঞ্জানগর পৌরসভার গিয়াসউদ্দিন।
ভোলা
সুধীর চন্দ্র দত্ত, উত্তম সেন, বাবুল চন্দ্র পোদ্দার, উত্তম কুমার দে, শ্যাম কুন্ড, চরফ্যাশনের দশরত কর্মকার, শুভংকর কর্মকার,সুধারাম চন্দ্র কর্মকার, রাম চন্দ্র কর্মকার, উপেন্দ্র চন্দ্র কর্মকার, লালমোহনের ভাস্কর সাহা, শম্ভু কর্মকার, বোরহান উদ্দিনের রনজিত পোদ্দার, রাজীব হাওলাদার, দৌলতখানের বাবু লাল, গৌতম কর্মকার, গোপাল, নিলয়, মনপুরার অজিত, সাধন, রিপন, চরফ্যাশনের অভিমন্য কর্মকার, মনরঞ্জন চন্দ্র, ভোলা সদরের বিক্রম রায় কর্মকার, বাবুল সাহা, অসীম সাহা, অরবিন্দু দে, মনা চন্দ্র মন্ডল, অবিনাস নন্দী, মিন্টু, রতন, শ্যামল ও বিক্রম।
পিরোজপুর
মৃত বিজয় কৃষ্ণ দেবনাথের ছেলে শংকর দেবনাথ, মুকুন্দ লাল বনিকের ছেলে আমল বনিক, অনন্ত কুমার খলিফার ছেলে কুমুদ খলিফা, মৃত প্রিয় লাল কর্মকারের ছেলে নিকুঞ্জু কর্মকার, মৃত নারায়ন কর্মকারের ছেলে বিমল কর্মকার, যতিশ চন্দ্র মজুমদারের ছেলে মতিন্দ্রনাথ মজুমদার ও মনোরঞ্জন মন্ডলের ছেলে সুশীল কুমার মন্ডল।
ঝালকাঠি
মৃত পরেশ চন্দ্র ঘোষের ছেলে গোপাল জন্দ্র ঘোষ।
যশোর
আব্দুর রাজ্জাক দফাদারের ছেলে বিপ্লব হোসেন দফাদর, সিরাজুল ইসলামের ছেলে মুকুল, মোহাম্মদ আলীর ছেলে জাহিদুল ইসলাম, আব্দুল মান্নানের ছেলে কোরবান আলী, আজিজ সর্দারের ছেলে রুবেল, কোব্বাত আলীর ছেরে আবুল কালাম, ইউসুফ আলীর ছেলে শরিফুল ইসলাম, বজু বিহারীর ছেলে পিয়ারুল, মোক্তার আলী, মোকসেদ আলীর ছেলে শাহাবুদ্দিন, মতিয়ার রহমানের ছেলে আসাদুজ্জামান আসাদ, শাহজান কবীরের ছেলে মনিরুজ্জামান অপু, মতিয়ার রহমানের ছেলে কামাল উদ্দিন ওরফে টাক কামাল, সামসু মুন্সির ছেলে শহিদুল ইসলাম, জাকির হাজির ছেলে পারভেজ, আজগর আলীর ছেলে হোসেন আলী, কোব্বাত আলীর ছেলে আবুল বাশার, কোরবান আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান, আলী গোলদারের ছেলে রমজান আলী, বেনাপল ইমিগ্রেশনের কনস্টাবল দেব প্রসাদ ও কনস্টেবল রাজ্জাক। গদাই র্সদারের ছেলে নাসির উদ্দিন, কোরবান আলীর ছেলে মফিজুর রহমান ঘেনা।
বাগেরহাট
সাচীন্দ্র রাথ চন্দ্রের ছেলে সুভাস চন্দ ও বিকাশ চন্দ্র, ধীরেন সাহার ছেলে অজিত সাহা, সুধীর দাসের ছেলে সুবাস দাস, নিতাই সাহার ছেলে তাপস সাহা, বিশ্বনাথ অধিকারীর ছেলে সাধন অধিকারী, হরবিলাশ, রাসু বিশ্বাস পরিমল মন্ডলঅরুন সাহা ও উত্তম দাম।
সাতক্ষীরা
গৌরদত্ত, আদিত্য মজুমদার, ব্রাদার্স জুয়েলার্সের আশুতোষ দে, আলীপুরের আব্দুর রউফ চেয়ারম্যান, খান মার্কেটের সুমন কর্মকার, বাবু কর্মকার, বিশ্বজিত্ মন্ডল, গোলাম মোর্শেদ, দীন বন্ধু মিত্র, ঝাউডাঙা বাজারের মুকুন্দ ভারতী, রবিন্দ্র নাথ দে, আশাশুনির দেব কুমার দে, কলারোয়ার হরেন্দ্র নাথ রায়, গোপাল চন্দ্র দে, তালা বাজারের গণেশ চন্দ্র শীল, বাসুদেব দত্ত, রাশেদুল ইসলাম, লিয়াকত হোসেন, জালাল উদ্দিন গাজী, নাসির, আলহাজ্জ কাজী নওশাদ দিলওয়ার রাজু, আল ফেরদৌস, আসাদুজ্জামান ওরফে অসলো, শাখরা কোমরপুরের ইসরাইল গাজী, কলারোয়ার মনিরুল ইসলাম চেয়ারম্যান, রয়েল সেনেটারীর মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, এএস ট্রেডার্স মোহাম্মদ আজিজুল ইসলাম, ফিরোজ এন্টারপ্রাইজের ফিরোজ হোসেন, কে হাসান ট্রেডার্সের খালিদ কামাল, মোহাম্মদ আজহারুল ইসলাম, শাহানুর ইসলাম শাহীন, নাছিম এন্টারপ্রাইজের গোলাম ফারুক বাবু, রিজু এন্টারপ্রাইজের আবু মুছা ও রোহিত ট্রেডাসের রাম প্রসাদ।
চুয়াডাঙা
মেসার্স গোলাম ফারুক মানি এক্সচেঞ্জের গোলাম ফারুক আরিফ।
শেরপুর জেলা
সিংগা বরুনা গ্রামের ফরহাদ আলী, পিতা-সামিউল হক, কর্ণ ঝোড়া গ্রামের ছানু মিয়া, পিতা-ইসমাইল হোসেন, আব্দুর রহিম ইব্রাহিম, পিতা-ইউনুস আলী, আলমাস ওরফে বাদুর, সানোয়ার হোসেন ছানু, পিতা-বাচ্চা মিয়া, ফরহাদ আলী, পিতা-হারুন মহাজন, মেঘাদল শতদল বাজারের আব্দুল হান্নান, আমিনুল ইসলাম ওরফে জামাই আমিনুল, মাটিফাটা গ্রামের কামরুজ্জামান লিপন, পিতা-আব্দুর রহমান, চান্দাপাড়া গ্রামের ছোট হায়দার, পিতা-মেহার উদ্দিন ও বাবলাকোনা গ্রামের আলেফ মিয়া, পিতা-কালা মিয়া, শেরপুর টাউনের কাপড় ব্যবসায়ী দিলীপ পোদ্দার, পিতা-মৃত শম্ভু পোদ্দার, শ্রীবরদীর আবু জাফর ওরফে বাচ্চা গোল্লা, বালিজুড়ি গ্রামের আব্দুর রশিদ পিতা-মোনাব আলী ও জহুরুল হক মেম্বার।
নরসিংদী জেলার নজরপুরের জহির উদ্দিন, মাধবদীর খায়ের উদ্দিন, নরসিংদী সদরের কাপড় ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন, মাধবদীর কাপড় ব্যবসায়ী জীবন মিয়া, ঘোড়া শংকর, অরবিন্দ বণিক, শাহ আলম, রিপন মিত্র ও মাধবদী বাজারের রমনী ফ্যাশনের নিজাম উদ্দিন ভূঁইয়া লিটন, বিসমিল্লাহ ট্রেডার্সের আশরাফুল ইসলাম, পাতিলবাড়ী রোডের মিতা টেইলার্সের সদর আলী, ইসলামী ব্যাংক নরসিংদী বাজার শাখার অফিসার আলী মিয়া, মাধবদী বাজারের ভাই ভাই শিল্পালয়, স্বর্ণ শিল্পালয়ের কমল মিত্র, ছোট মাধবদীর বলাই পাল ও মাধবদীর জিহাদ ফ্যাশনের তোফাজ্জল হোসেন।
নারায়ণগঞ্জ জেলা
মিষ্টিমুখ দোকানের মালিক ত্রিনাথ ঘোষ, মর্গান সাহা, দিগু বাবু বাজারের দুলাল সাহা, ফতুল্লার প্রাউড ট্রেক্সটাইলের এমডি শ্যামল কুমার সাহা, সোনারগাঁওয়ের মোগড়াপাড়ার শামসুল আলম, মিউনিসিপ্যাল মার্কেটের শাহ আলম তালুকদার, ডাইলপট্টির নারায়ণ সাহা, নীল কৃষ্ণ দাস, আমলাপাড়ার ব্যবসায়ী প্রবীর সাহা ও লবণ ব্যবসায়ী পরিতোষ সাহা।
মাদারীপুর জেলা
পুরান বাজারের প্রতিমা জুয়েলার্সের নন্দ কর্মকার, সঞ্জীব রায়, পদ্মা বস্ত্রালয়ের গোলাম হোসেন, বাদশা মিয়া, জাহিদ হাসান, টেকেরহাট বাজারের কমল সাহা, বাসুদেব কুন্ড, পরিমল কর্মকার, শিবচরের রঘুনাথ পাল, শংকর পাল,
চাঁপাইনবাবগঞ্জ
সাইফুল ইসলাম, মনাকষার সাজু, আশরাফুল ইসলাম, একরামুল হক, ফিরো, টিপু সুলতান, রুহুল আমিন, এএস নাহার এন্টারপ্রাইজের হারুন আর রশিদ, এস আলম অ্যান্ড সন্সের ইসমাইল, প্রীতি এন্টারপ্রাইজ, ওবাইদুল হক, মাসুম এন্টারপ্রাইজের সেলিম রেজা, সি ইন্টারন্যাশনালের জাহাঙ্গীর আলম, সিরাজ এন্টারপ্রাইজের মমিনুল হক, বিএইচ ট্রেডার্সের বাবুল হাসনাত দুরুল, বাবুল এন্টারপ্রাইজের বাবুল চৌধুরী ও বেনকো এন্টারপ্রাইজের মতিউর রহমান।
নওগাঁ
তাজ মোড়ের পরিতোষ সাহা, প্রবীণ ট্রেডার্সের প্রদীপ কুমার আগরওয়ালা, তুলা পট্টি মোড়ের গোপাল চন্দ্র সাহা, গৌর গোপালা সাহা, দাস জুয়েলার্সের নিশিকান্ত দাস, বান্ধব বস্ত্রালয়ের নারায়ন চন্দ্র ও চিশতিয়া মানি চেঞ্জারের শেখ আজাদ হোসেন।
জয়পুরহাট
ধানমন্ডি মন্দির রোডের সুদর্শন কুন্ড, পাঁচবিবির আব্দুর রহমান, পশ্চিমা উচনার আব্দুল কুদ্দুস, পাঁচবিবির বাগজানার সেন্টু মিয়া, মিজানুর রহমান, আজিজুর রহমান, মোর্শেদ, ভুলডোবার মনতাজ উদ্দিন, ইয়ারুল জোয়ারদার, ফারান ট্রেডার্সের রাশিদুল ইসলাম, এলসি ব্যবসায়ী আব্দুল মালেক ওরফে ফাঁটা বাবু, হিলি স্থল বন্দরের ব্যবসায়ী আবুল হোসেন, হারুনুর রশিদ, জামিল হোসেন চলন্ত, সেলিম খান, সাজ্জাদ হোসেন মল্লিক, কামাল হোসেন রাজ, সিএন্ডএফ এজেন্ট আব্দুর রহমান লিটন ও বাবলুর রহমান বাবলু।
নাটোর
প্রদীপ কুমার আগরওয়ালা, শ্যাম কুমার আগরওয়ালা, দুলাল চন্দ্র কর্মকার, নৃপেন চন্দ্র কর্মকার, মুধুসুধন পোদ্দার, খোকন পোদ্দার, স্বপন কুমার পোদ্দার, প্রভাত কুমার পোদ্দার, মমতাজ উদ্দিন উজ্জল ও প্রহল্লাদ কর্মকার।
দিনাজপুর
হাকিমপুরের জসিমুদ্দিন প্রামানিক, স্বপন দেবনাথ, হযরত আলী সরদার, চিরিরবন্দরের নূর এ কামাল, আতিয়ার রহমান, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, মোফাজ্জল হোসেন, হাকিমপুরের সততা বানিজ্যালয়ের বাবুল রহমান, সাইফুল ইসলাম, মমতাজ ওরফে মন্তাজ, আব্দুর রশিদ, দিনাজপুর সদরের আব্দুস সামাদ, মোসাদ্দেক ও শেরেকুল।
কুড়িগ্রাম
নাগেশ্বরীর তুফান মেম্বার, মঞ্জু মিয়া, শফিকুল ইসলাম ও পাচগাছি বাজারের এরশাদুল হক।
লালমনিরহাট
ভারতীয় গরু ব্যবসায়ী শাখাওয়াত হোসেন সুমন, মিজানুর রহমান, রুহুল আমিন বাবুল, সিএন্ডএফ এজেন্ট সায়েদুজ্জামান সাঈদ, হুমায়ন কবির সওদাগর, পাটগ্রামের আব্দুর রাজ্জাক, আমির হামজা, সুশান্ত কুমার ধর, রফিকুল ইসলাম ভুড়ি বেচা, আবু হেনা মো: এরশাদ হোসেন সাজু, আবু সায়েদ নেওয়াজ নিশাত ও রুবেল আহমেদ।
পঞ্চগড়
তেঁতুলিয়ার শামসুল মন্ডল, নুরুজ্জামান, আনোয়ার আলী, আটোয়ারীর শাহজাহান আলী, আবুল কালাম, জাহিদুল, দুলু মিয়া, হারুন আলী, মন্টু হোসেন, গোলাম রব্বানী, সাইফুল ইসলাম, উপজেলা সদরের মনিরুল ইসলাম, বোদার হরিকেশ, রফিকুল ইসলাম খড়িকা, তোফাজ্জল হোসেন কেল্টু, আব্দুল করিম, জালাল হোসেন, খেরজাহান, আশ্রাফ আলী, নজরুল ইসলাম, খলিলুর রহমান, আসাদুল ইসলাম, নয়ন, শহীদুল ইসলাম, পঞ্চগড় সদরের এইচএম কামরুজ্জামান ফরহাদ, জয়দেব কুন্ড, প্রহর ইন্টারন্যাশনালের জাহাঙ্গীর আলম ও জয়নুল আবেদীন কোং এর সাইদুর রহমান।
ঠাকুরগাঁও
বালিয়াডাঙির তেয়ব আলী, আজিজুল হক, রফিক, হাফেজ, হবিবর রহমান, তুষার সিংহ, হরিপুরের নোমু, পিতা-নাইমউদ্দিন, মনিরুল ইসলাম, রানীশৈংকলের সোহেল রানা, নুরুজ্জামান, জাহেরুল ইসলাম, মুকসেদ, বোচল, বালিয়াডাঙির আকালু ও লাজিব উদ্দিন কালঠু।
গাইবান্ধা
গাইবান্ধা পৌর পার্ক মার্কেটের ব্যবসায়ী মানিকচন্দ্র রায়, বিমল চন্দ্র রায়, বিপ্লব চন্দ্র দাস ও তাপস।

সূত্র : ইত্তেফাক

Share Button