মাতৃ দিবসে জেনে নিন স্তন্য পানের প্রয়োজনীয়তা

ডেস্ক রিপোর্ট : কথায় বলে, শিশুর জন্য ‘মায়ের দুধ সর্বোত্তম’। সন্তানকে বুকের দুধ পান করালে শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শিশুকে সুস্থ ও সবল রাখতে সাহায্য করে। আবার সন্তানকে স্তন্যদান করলে নারী ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কাও কমে। চিকিত্‍সাস্ত্রের এসব প্রতিষ্ঠিত বিষয়গুলো এখন প্রায় অনেকেরই জানা। এছাড়াও রয়েছে আরও অনেক উপকার।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের উপর প্রকাশিত প্রতিবেদনে ভারতের মহিলা ও শিশুবিষয়ক চিকিত্‍সক এবং ‘ফার্টিলিটি’ বিশেষজ্ঞ ডা. নন্দিতা পালশেতকার বলেন, “শিশুর জন্য মায়ের দুধের উপকারিতা সম্পর্কে অনেক কিছু বলা হয়ে থাকে।তবে এটাও সত্য যে, স্তন্যদান মায়ের জন্যও উপকারী। নবজাতককে বুকের দুধ খাওয়ানোর মাধ্যমে মায়ের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি হ্রাস পায় এবং শিশুর পরিচর্যা করার মধ্য দিয়ে মায়ের ওজন কমাতেও সাহায্য করে।”

মাতৃত্বের প্রথম পর্যায়ে হরমোনের নানান পরিবর্তন হয়। এবং গর্ভাবস্থার পরবর্তী সময়ে তা একটি নির্দিষ্ট রুটিনে চলে আসে। এই সময় নবজাতককে বারবার স্তন্যদানের জন্য মায়ের দুর্বলতা অনুভব করা, খিটমিটে মেজাজ, ঘুমের স্বল্পতা ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেওয়া খুব স্বাভাবিক।

তারপরও এটা বুঝতে হবে যে, শিশুকে স্তন্যদান করা স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায় এবং মানসিক ও শারীরিক পরিবর্তন অতিক্রম করতে সাহায্য করে।

শিশুর জন্মের পরের প্রথম কয়েকদিনের দুধকে ‘প্রথম দুধ/কোলেস্ট্রাম’ বা শালদুধ বলা হয়। হলুদাভ, ঘন এ তরল শিশুর জন্য প্রয়োজনীয় সকল পুষ্টি উপাদান সরবারহ করে। কোলোস্ট্রাম শিশুর হজমক্রিয়া উন্নত করে ও দুধ হজম হতে সাহায্য করে। ফলে কেবল শিশু নয় মাও উপকৃত হয়। অনেকে নারীই মনে করেন সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়ানো হলে তার শরীরের বাহ্যিক গঠনে প্রভাব পড়বে। তবে সত্যি হল, এরমধ্য দিয়ে নারীরাও উপকৃত হয়। যেমন-

* গবেষণায় দেখা গেছে যে, যেসব নারী সন্তানকে নিয়মিত বুকের দুধ পান করান তাদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা ২৫ শতাংশ পর্যন্ত কমে যায়। যত বেশি সন্তানকে স্তন্যদান করা হয় নারীদের ক্যান্সারের ঝুঁকি তত বেশি হ্রাস পায়। তাছাড়া নিয়মিত স্তন্যদান করা হলে তা জরায়ু ও ডিম্বাশয়ের ক্যান্সার দূরে রাখতে সাহায্য করে।

* সন্তানকে বুকের দুধ পান করানো পরিবার পরিকল্পনার ক্ষেত্রেও ‍ভূমিকা রাখে। এটা প্রোল্যাক্টিন উত্‍পাদন করে ডিম্বস্ফোটনে বাধা দেয়। প্রোল্যাক্টিন এস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরনের উত্‍পাদনে বাধা দেয় যা ডিম্বস্ফোটন নিয়ন্ত্রণ করে। এভাবে শিশুকে স্তন্যদান করা মায়ের জন্যও উপকারী।

* গবেষণা থেকে জানা যায়, শিশু-পরিচর্যা মধ্য দিয়ে মায়ের মানসিক স্বাস্থ্যও ভালো থাকে। যে সকল মা শিশুকে নিয়মিত বুকের দুধ পান করান তাদের মধ্যে প্রসব পরবর্তী ভীতি ও অবসাদ হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে এবং মা ও শিশুর মধ্যকার সম্পর্ক জোরালো হয়।

* গবেষনা থেকে আরও জানা যায়, যেসকল মা দিনে অন্তত চার বার স্তন্যদান করেন না তাদের অস্টিওপোরোসিস হওয়ার সম্ভাবনা অনেকটাই বেড়ে যায়। আর মেনোপজের পরবর্তী সময়ে কোমড়ের হারের ফাটল জনিত সমস্যায় ভোগেন।

শুধু তাই নয়, স্তন্যদান মায়ের গর্ভপরবর্তী ওজন হ্রাস করতে সাহায্য করে। শিশুর পরিচর্যার জন্য মায়ের দৈনিক ৫০০ ক্যালরি খরচ হয়। ফলে মায়ের কোমড়ের পরিধি ও অতিরিক্ত চর্বি কমাতে সাহায্য করে। শিশু পরিচর্যায় অক্সিটসিন উত্‍পাদনে সাহায্য করে। যা সন্তান জন্মের পরে মায়ের জরায়ু সুস্থ রাখতে সহায়তা করে। তাছাড়া এটা মায়ের অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ নিয়ন্ত্রণও সাহায্য করে।

সম্পাদনায়: মেহেদী/ জ্যোৎস্না

Share Button