পরিকুন্ড জলপ্রপাত

এস এম মেহেদী হাসান: মাধবকুন্ডের পাশে পরীকুন্ড জলপ্রপাত টানবে সবাইবে ঈদের ছুটিতে অনেকে বেড়াতে যান। বেড়ানোর জায়গাটা যদি প্রকৃতির খুব কাছাকাছি হয়, তবে তো কথাই নেই। ‘মাধবকুন্ড’ জলপ্রপাত কমবেশি সবারই চেনা। তবে এর কাছেই যে আরেকটি জলপ্রপাত আছে, সেটা কি দেখা হয়েছে? স্থানীয় মানুষের কাছে এর নাম ‘পরিকুন্ড’। সবুজ পাহাড়ে ঘেরা এই জায়গাটি টানবে সবাইকে। মাধবকুন্ডের চেয়ে পরিকুন্ড কিছুটা নির্জন। বিভিন্ন প্রজাতির গাছপালায় ছেয়ে আছে এর চারপাশ। প্রায় ১৫০ ফুট উঁচু থেকে পাথরের খাড়া পাহাড় বেয়ে শোঁ শোঁ শব্দ করে জলধারা নিচে আছড়ে পড়ছে। নিচে বিছানো ছোট-বড় পাথর গড়িয়ে স্রোতধারা একটি বড় ছড়ায় মিশে গেছে। বড় একটি পাথরে বসে আনমনে খুব কাছ থেকেই জলপ্রপাতের নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করা যেতে পারে। ইচ্ছা করলে স্বচ্ছ পানির ছড়ায় ভালোমতো গোসলও সেরে নেওয়া যায়।
ঈদের ছুটিতে যাঁরা মাধবকুন্ডে বেড়াতে যেতে চান, তাঁরা চাইলেই পরিকুন্ড দেখে আসতে পারেন। স্থানীয় বাসিন্দা রান্ডু নায়েক জানালেন, তিনি ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়ে পর্যটকদের ছবি তুলে দেন। কেউ বললে পরিকুন্ডে নিয়ে যান। পর্যটকেরা খুশি হয়ে যা দেন, তা-ই নেন। মাধবকুন্ডের পর্যটন করপোরেশনের রেস্তোরাঁর ব্যবস্থাপক রমিজ উদ্দিন ভূঁইয়া দৈনিক বর্তমানকে জানান, মাঝেমধ্যে পর্যটকদের অনেকে এসে
পরিকুন্ড যাওয়ার রাস্তা সম্পর্কে জানতে চান।
জলপ্রপাত পরিকুন্ড যেভাবে যাবেন: টিকিট কেটে প্রধান ফটক পেরিয়ে মাধবকুন্ড জলপ্রপাতের রাস্তা। হাঁটতে হাঁটতে সামনে গিয়ে হাতের বাঁ পাশে টিলার ওপর শিবমন্দির। এর ঠিক বিপরীতে রাস্তার সঙ্গে একটি নতুন পাকা সিঁড়ি তৈরি হয়েছে। ওই সিঁড়ি দিয়ে নেমে মাধবকুন্ডের মূল ছড়া। আর ওই ছড়াটির সোজাসুজি পাথর বিছানো ছড়া দিয়ে ১০ থেকে ১৫ মিনিট হাঁটলেই পরিকুন্ড। ভয়ের কারণ নেই। ছড়ায় শুধু পায়ের পাতাই ভিজবে। ভয়ের অবশ্য দু-একটা কারণ আছে। নিচে বিছানো পাথরগুলো কিন্তু বেশ পিচ্ছিল। শ্যাওলা জমে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। তাই পা ফেলতে হবে সাবধানে। মাধবকুন্ড ও পরিকন্ড বেড়াতে এসে কাছাকাছি রাত্রিযাপনের জন্য জেলা পরিষদের দুই কক্ষের একটি বিশ্রামাগার আছে। সেটি কমপক্ষে সাত দিন আগে বুকিং দিতে হয়।
পরিকুন্ড জলপ্রপাত যাতায়াত ব্যবস্থা:
ঢাকা থেকে বাস, ট্রেন, বিমান সকল পথেই মৌলভীবাজার যাওয়া যায়। ঢাকার সায়দাবাদ, কমলাপুর, কল্যাণপুর, আসাদগেট সহ দেশের যেসকল স্থান থেকে মৌলভীবাজার জেলার বাস ছাড়ে সেখান থেকে মৌলভীবাজারের বাসে করে কুলাউড়া নামতে হয়। ঢাকা-মৌলভীবাজার রুটে চলাচলকারী বাসগুলোর মধ্যে রয়েছে শ্যামলী পরিবহন, হানিফ এন্টারপ্রাইজ, টি.আর ট্রাভেলস, এনা পরিবহন। ট্রেনে করে যেতে হলে ঢাকার কমলাপুর থেকে সিলেট রুটে চলাচলকারী ট্রেনে করে কুলাউড়া স্টেশনে নামতে হয়।

ঢাকা থেকে যেসকল ট্রেন সিলেট রুটে চলাচল করে সেগুলো হলো –
পারাবত এক্সপ্রেস (মঙ্গলবার বাদে প্রতিদিন সকাল ৬:৪০ মিনিটে), জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস (সপ্তাহের ৭ দিনই দুপুর ২ টায়) ঢাকা হতে ছেড়ে যায়। যোগাযোগ: বাংলাদেশ রেলওয়য়ে ; ফোন: ৯৩৫৮৬৩৪,৮৩১৫৮৫৭, ৯৩৩১৮২২, ০১৭১১৬৯১৬১২।

বিমান পথে যেতে
হলে হযরত শাহজালাল শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ইউনাইটেড এয়ারওয়জের ফ্লাইট নং ৪ঐ-০৫১১ এ করে অথবা বাংলাদেশ এয়ারলাইনস এর সিলেটগামী (অভ্যন্তরীণ) যে-কোন ফ্লাইট এ করে সিলেট গিয়ে সেখান থেকে পাবলিক বাসে করে মৌলভীবাজার আসতে হয়। মঙ্গল, বৃহস্পতি, শনি, রবি সপ্তাহের এই চার দিন।
ঢাকা-সিলেট রুটে বিমানে করে যাওয়া যায়। ভাড়া ৩০০০ টাকা। যোগাযোগ: ৮৯৩২৩৩৮, ৮৯৩১৭১২।

Share Button