খেলতে বাধা পেলেই শিশুদের ৩৩৩-এ কল করতে বললেন মেয়র

ডেস্ক রিপোর্ট : বুধবার ‘আমরাও বলতে চাই’ শীর্ষক সংলাপে আসা শিশু ও কিশোরদের তিনি প্রয়োজনে সরকারি তথ্যসেবার হটলাইন ৩৩৩ এ ফোন করারও পরামর্শ দেন। মোহাম্মদ হাসান নামের এক কিশোর অনুষ্ঠানে বলে, সিটি করপোরেশন এলাকায় পর্যাপ্ত খেলার মাঠ নেই। যা আছে, সেগুলোতেও মেলাসহ নানা কার্যক্রম চলে, খেলাধুলা করা যায় না। তার অভিযোগে মেয়র তাৎক্ষণিক প্রতিশ্রুতি দেন, ঢাকা উত্তর সিটির কোনো মাঠে কোনো ধরনের মেলা হবে না।

এগুলো তোমরা ব্যবহার করবে। যদি কোথাও কেউ সমস্যা করে, তোমাদের খেলতে না দেয়, তাহলে ৩৩৩ নম্বরে কল করে জানাবে। আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নেব। সরকারি তথ্য ও সেবা এবং সামাজিক সমস্যার প্রতিকারে সহায়তার হেল্পলাইন ৩৩৩ এ ফোন করে অভিযোগ জানাতে পারেন নাগরিকরা। এলাকার বাসিন্দাদের সেবা দিতে এই হটলাইনে গত নভেম্বর থেকে যুক্ত হয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন। মাঠ বা পার্কে খেলার নিরাপদ পরিবেশ নেই বলে অনুষ্ঠানে উপস্থিত কিশোরীদের কয়েকজন মেয়রকে জানায়। মেয়র তাদের বলেন, নগরের মাঠগুলোতে কিশোরীদের জন্য আলাদা খেলার জায়গা করার বিষয়টি ভেবে দেখবেন তিনি। আমরা ২৪টি খেলার মাঠ ও পার্কের সংস্কার ও উন্নয়ন করছি, যার ১৭টিতেই সিসি ক্যামেরা এবং এলইডি লাইট থাকবে। বনানী ১৮ নম্বর রোডের মাঠে শুধু নারী ও শিশুরা খেলবে। আর বাকিগুলোতেও একটি নির্দিষ্ট সময়ে বা একটি নির্দিষ্ট জায়গা কিশোরীদের জন্য আলাদা করে দেয়া যায় কিনা আমরা দেখবো।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন ও ইউনিসেফ বাংলাদেশ আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে আসা শিশু-কিশোরদের কেউ কেউ পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণের ব্যবস্থা নিতে বলে, কেউ আবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে শিশুশ্রম নিয়ে। শহরকে শিশুদের জন্য নিরাপদ করার দাবিও জানায় তারা।

হাসপাতাল ও ফার্মেসিগুলোতে নারী চিকিৎসক এবং ফার্মাসিস্ট হতে চায় মরিয়ম আক্তার মেঘলা নামের এক কিশোরী। সে বলে, আমাদের কিশোরীদের অনেক ধরনের সমস্যা থাকে, কিন্তু আমরা সেগুলো হাসপাতালে বা ফার্মেসিতে বলতে পারি না, কারণ সেখানে পুরুষ বেশি। এ প্রসঙ্গে ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোমিনুর রহমান মামুন বলেন, ডিএনসিসির মাতৃসদন হাসপাতালগুলোতে নারী চিকিৎসক আছেন। সেখানে কিশোর-কিশোরী কর্নার আছে। সেখানে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, এছাড়া আমাদের স্বাস্থ্যকর্মীরাও তোমাদের কাছে ভিজিটে যাবে। পরে কিশোর-কিশোরীদের নিয়ে গুলশান-২ এলাকায় বিচারপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ পার্ক পরিদর্শন করেন মেয়র।

Share Button